April 21, 2021, 5:42 pm


স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না,বাড়ছে করোনা

হঠাৎ করেই দেশে বাড়তে শুরু করেছে করোনা সংক্রমণের হার। সবশেষ গত দুদিনে ১০৫১ জনের করোনা শনাক্তের খবর জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। সেই হিসেবে শনাক্তের হার ৫.৮২ শতাংশ। বুধবার শনাক্ত হয় ১০১৮ জনের, মঙ্গলবার ৯১২ জনের, সোমবার ৮৪৫ জনের, রোববার ৬০৬ জনের, শনিবার ৫৪০ জনের। অর্থাৎ শনিবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত দেখা গেছে প্রতিদিনই সংক্রমণ বাড়ছে।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন- করোনা বাড়ার জন্য বেশ কয়েকটি কারণ থাকতে পারে। মানুষ আগের তুলনায় মাস্ক পরছেন না। স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না। সামাজিক, সাংস্কৃতি ও রাজনৈতিক অনুষ্ঠানে জনসমাগম স্বাভাবিক সময়ের মতই লক্ষ করা যাচ্ছে। সাবান পানি দিয়ে হাত ধোয়ার সেই ধারাবাহিকতা কমেছে। কমেছে ভয়ও।

স্বাস্থ্যবিধি না কম মানার পেছনে দুটি কারণ থাকতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। প্রথমত মাঝে যখন সংক্রমণের হার একেবারেই কমে যাচ্ছিল। তখন অনেকেই মনে করেছেন করোনা বুঝি চলে যাচ্ছে। তখন থেকেই স্বাস্থ্যবিধি মানতে একপ্রকার অনীহা দেখা দেয়। এরপর যখন ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু হয়, তখন অনেকেই স্বাস্থ্যবিধি মানতে আরও বেশি উদাসীনতা দেখান। যার কারণে আবার সংক্রমণ বাড়তে শুরু করেছে।

এরই মধ্যে যুক্তরাজ্যের নতুন ধরনের করোনাভাইরাসে সংক্রমণও শনাক্ত হয়েছে। প্রাথমিকভাবে জনুয়ারিতে আইইডিসিআর ৬ জনের মধ্যে এই ভাইরাসের সংক্রমণ নিশ্চিত হয়েছে। তারপর থেকে এখন পর্যন্ত কি পরিমাণ মানুষের মাঝে ছড়িয়েছে তাও নিশ্চিত নয়। তাই আবার যাতে সংক্রমণ ব্যাপকভাবে বেড়ে না যা সে জন্য কঠোর নির্দেশনা আসতে পারে। সম্প্রতি করোনাবিষয়ক জাতীয় পরামর্শ কমিটি বৈঠক করেছে। তারা কয়েকটি বিষয়ে ঠিক করেছেন। সেই বিষয়গুলোয় বাস্তবায়নে সরকারকে সুপারিশ করবেন বলে জানা গেছে।

রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এ এস এম আলমগীর হোসেন বলেন, সবাই স্বাধীন হয়ে গেছি। কেউ আর মাস্ক পরি না। স্বাস্থ্যবিধি না মানাটাই সংক্রমণ বাড়ার অন্যতম কারণ। ব্যক্তিগত সচেতনতা ছাড়া আসলে উপায় নেই।নিজে নিজেকে রক্ষা করতে হবে।

সামনে আবার ব্যাপক হারে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কা আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ঝুঁকি তো আছেই। তারপরও যদি আমরা সকলে সাবধানে থাকি, তাহলে হবে। আমরা ভ্যাকসিন দিচ্ছি এবং সেই সাথে আমরা যদি স্বাস্থ্যবিধি মানি তাহলে দেখা যাবে সংক্রমণ মোটামুটি একটা পর্যায়ে ধরে রাখা যাবে।

টিকা নেওয়া সাথে সাথেই সকলের ইমিউনিটি তৈরি হয় না। অন্তত তিন সপ্তাহ সময় লাগে। তাছাড়া টিকার কার্যকারিতাও শতভাগ নয়। সেই কারণে টিকা নিলেও স্বাস্থ্যবিধি মানার ওপর গুরুত্ব দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

জাতীয় পরামর্শক কমিটির সদস্য ও স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) সভাপতি অধ্যাপক ডা. এম ইকবাল আর্সলান বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মানতে উদাসীনতায় সংক্রমণ বাড়ছে। সংক্রমণ রোধে করণীয় নির্ধারণে গত মঙ্গলবার রাতে জাতীয় পরামর্শক কমিটির সভায় বেশকিছু করণীয় ঠিক করা হয়েছে। সেগুলো বাস্তবায়নে শিগগিরই সরকারের কাছে সুপারিশ আকারে উত্থাপন করা হবে।

0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


সংবাদ পড়তে লাইক দিন ফেসবুক পেজে