October 18, 2020, 2:15 pm


ক্রেতা শূন্য নোয়াখালীর কোরবানির হাট গুলো:কেউ মানছে না সামাজিক দুরত্ব

নোয়াখালী:

কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে নোয়াখালীর বিভিন্ন জায়গায় বসতে শুরু করেছে কোরবানির পশুর হাট। চলছে বেচাকেনা। কিন্তু কেউই পশুর হাট গুলোতে মানছেন স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দুরুত্ব। এদিকে হাট গুলোতে উল্লেখযোগ্য ক্রেতা না থাকায় হতাশ গরু ব্যবসায়ীরা।

এ দিকে সরজমিনে জেলার বিভিন্ন হাট বাজার ঘুরে দেখা যায়, এবার দেশীয় জাতের গরু সংখ্যা বেশি দেখা যাচ্ছে তবে ইন্ডিয়ান গরুর সংখ্যা এবার কম দেখা যাচ্ছে। একদিকে ক্রেতা-বিক্রেতাদের সামাজিক দুরত্ব ও মাক্স ব্যবহার নিশ্চিত করতে ব্যর্থ হচ্ছেন গরুর হাট আয়োজকরা। অন্যদিকে অধিকাংশ পশুর হাটগুলো দেখা যাচ্ছে ক্রেতাশূন্য।

গরুর কিনতে আসা সোলায়মান নামে এক ক্রেতা জানান, আমি কয়েকটি হাটে গিয়েছি অধিকাংশ হাটে অনেক বেশি গরু উঠেছে তবে কতৃপক্ষ হাট পরিস্কার রেখে আগত ক্রেতা- বিক্রেতা জন্য স্যানিটাইজার, মাক্স ও হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করলে রোগব্যাধি কম ছড়াবে বলে মনে করি ।

আরেক ক্রেতা জানান, যদিও এইবার বিভিন্ন দেশীয় খামারি গরু কোরবানির হাটে উঠেছে কিন্তু চাহিদার তুলনায় দাম একটু বেশি।

পশুর হাটের কতৃপক্ষ জানান, হাটে আগত সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ করলেও মানছেনা কেউ।

আব্দুর রহিম নামে খামাির জানান, এ বছর গরু উৎপাদনে আমাদের খরচ বেড়েছে এবং সেই খরচের তুলনায় ওই পরিমাণ দাম আমরা পাচ্ছি না যদিও ক্রেতারা মনে করছে দাম একটু বেশি কিন্তু আমাদের খরচের তুলনায় তেমন বেশি নয়।

জেলার নাগরিক সমাজ মনে করছেন, পশুর হাটগুলোতে যদি সামাজিক দুরুত্ব নিশ্চিত করা না করা যায় তাহলে যে হারে নোয়াখালীতে করোনা সংক্রমণ যে ভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে তাতে জেলার সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষকে এখন থেকে নিতে হবে হাটের উপর কঠোর নজরদারি, তা নাহলে ঈদের পরে করোনার প্রাদুভার্বে বড় ধরনের সর্বনাশ হতে পারে জেলাজুড়ে ।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, নোয়াখালী জেলা প্রশাসন কোরবানির ঈদ উপলক্ষে এবছর স্থায়ী পশুর হাট -২৬৫টি ও অস্থায়ী হাট- ১২১ টি সহ মোট ৩৮৬ টি হাটকে সকল ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনেই ইজারা দেয় হাট কতৃপক্ষকে।

যদিও নোয়াখালী করোনা সংক্রমণের কঠিন ঝুঁকিতে রয়েছে। দেখা যায় জেলায় করোনা সংক্রামন বেড়েছে ইতোমধ্যে সংক্রমণের সংখ্যা ৩ হাজারের কাছাকাছি । আর মৃত্যু সংখ্যা- ৬১ জন।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক খোরশেদ আলম জানান, আমরা কোরবানির ঈদ উপলক্ষে এ বছর স্থায়ী পশুর হাট -২৬৫টি ও অস্থায়ী হাট- ১২১ টি সহ মোট ৩৮৬ টি হাটকে সকল ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনেই ইজারা দেয় হাট কতৃপক্ষকে। প্রতিটি পশুর হাটে মোবাইল কোর্ট থাকবে এবং মাক্স ছাড়া কাউকে হাটে প্রবেশ করতে দেওয়া হবেনা ।

0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


সংবাদ পড়তে লাইক দিন ফেসবুক পেজে