September 26, 2020, 11:52 am


ইয়া নফসি ইয়া নফসিই’ এখন চরম বাস্তবতা

হাসিনা আকতার নিগার

রাত-দিন, সপ্তাহ মাস সব জানি কেমন হয়ে গেছে। মৃত্যু আর করোনাভাইরাসের চিন্তা ছাড়া আর কিছু এখন বুঝতে পারি না। চারদিকে দমবন্ধ পরিবেশ। পৃথিবীতে করোনাভাইরাস মানুষকে শারিরীক মানসিকভাবে বিপর্যস্ত করে তুলছে। প্রকৃতির এ লীলাখেলাতে অসহায় মানুষ। ভাবতে পারছে না বর্তমান ও ভবিষ্যৎ নিয়ে। এর থেকে মুক্তির পথ কি তা এ মুহূর্তে কেউ জানে না। শুধু প্রাণটাকে বাঁচিয়ে রাখার লড়াইতে ব্যাকুল সকলে।

জীবনের নির্মমতা আর কঠিন বাস্তবতায় পীড়াদায়ক সময় পার করছে বিশ্ব। করোনার কারণে পারিবারিক সামাজিক সম্পর্কগুলোতে একটা নিদারুণ সত্য প্রতিফলিত হচ্ছে। ‘ইয়া নফসি ইয়া নফসিই’ জীবন। নিজেকে বাঁচতে সবাই যার যার মত লড়াই করছে। কোভিড-১৯ কে প্রতিরোধ করতে সামাজিক পারিবারিক বন্ধনটা খুব জরুরি। কিন্তু এ ভাইরাসের প্রার্দুভাব দীর্ঘস্থায়ী হবার কারণে মানসিক শক্তিটা দুর্বল হয়ে পড়ছে। জীবন ও জীবিকার অনিশ্চিয়তা তাড়া করছে সর্বক্ষণ। আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকা ছাড়া আর কিছু করার নেই।

দেশে করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণহীন। প্রতিটা দিন চেনা জানা মানুষের মৃত্যুর খবর মনকে অশান্ত করে তুলছে। সংবাদ ও সামাজিক মাধ্যমে মৃত্যুর আহাজারি দেখে ভয় হয়। কেবল মনে হয়, আজ যে প্রিয়জনের সঙ্গে বসবাস, কাল করোনা আক্রান্ত হলে সে কি পাশে থাকবে। আশেপাশে কেউ রোগাক্রান্ত হলে তা গোপন করা হয়। কারণ কেউ করোনাভাইরাসে সংক্রামিত হলে তাকে হেনদৃষ্টিতে দেখে মানুষ। যদিও এখন এ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে ব্যাপকভাব।

অদৃশ্য এ ভাইরাসের বাহক মানুষ। আর সে কারণে রক্তের সম্পর্কের মায়া মমতা নিমিষে শেষ হয় মৃত্যুর ভয়ে। নিজে বাঁচলে দুনিয়া ঠিক – এ অমোঘ বিধানকে করোনাভাইরাস চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়েছে। মিথ্যা মোহের পিছু ছুটে চলা জীবনটা বড় অর্থহীন।
নিজের চিরবিদায় হবে আপনজনের পরশে এটাই সবার চাওয়া। কিন্তু করোনাভাইরাসে মৃত্যু হলে সবাই দূরে সরে যায় নিজে আক্রান্ত হবার ভয়ে। আপন ভাই পিতা মাতা, সন্তানকে হাসপাতালে রেখে চলে যাবার খবরে আর হতবাক হয় না মানুষ। মনুষ্যত্ববোধ, মানবিকতার চেয়ে নিজেকে টিকিয়ে রাখতে অমানবিক হবার চিত্র দেখা গেছে বিগত সময়ের মহামারীতেও। তাই কোভিড-১৯ এ একে অপরের পাশে দাঁড়াতে চাইলেও সবার পক্ষে সম্ভব না।

কোভিড-১৯ একটা নতুন পরিবেশ সমাজ দিবে এ নিয়ে পজিটিভ ভাবনাগুলো হোঁচট খাচ্ছে। স্বাভাবিক জীবনে এখন মানুষের পারস্পরিক সম্পর্কগুলো শুধু জিজ্ঞাসার চাহনি। অদৃশ্য করোনাভাইরাস মানুষকে আত্মরক্ষার কৌশল হিসেবে বড় স্বার্থপর করে তুলছে। ইয়া নফসি ইয়া নফসি করে বাঁচা দেখে মনে হয় – আহারে জীবন।লেখক : কলামিস্ট।

0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


সংবাদ পড়তে লাইক দিন ফেসবুক পেজে