September 29, 2020, 2:33 am


নোয়াখালীতে বাড়ি, ঘর দখলের চেষ্টা ও হামলার প্রতিবাদে সাংবাদিক সম্মেলন

আকাশ মো. জসিম, নোয়াখালী : নোয়াখালীর কবিরহাটের নলুয়ায় সন্ত্রাসী কায়দায় অসহায় ও হতদরিদ্র্য কৃষকের বাড়ি, ঘর দখলের চেষ্টা ও হামলার প্রতিবাদে বিচার দাবি করে সাংবাদিক সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগী পরিবার।
এ ঘটনায় কবির হাট থানায় মামলা রুজু হলেও এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুলিশ কোন আসামীকে গ্রেফতার করতে পারেনি।
মঙ্গলবার ১২টায় নোয়াখালী প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত সাংবাদিক সম্মেলনে গুরুতর আহত বৃদ্ধ আবুল কালাম, মোজাম্মেল হোসেন ও তার স্ত্রী হালিমা খাতুন এবং গ্রাম পুলিশ আবদুর রহিম উপস্থিত হয়ে সংঘটিত সংশ্লিষ্ট ঘটনা বিষয়ে সাংবাদিকদের পূর্বাপর বর্ণনা দেন।
এ সময় দরিদ্র্য মোজাম্মেল হোসেন, আবুল কালামসহ আহতরা অভিযোগ করেন, তাদের মালিকীয় ও ভোগ দখলীয় জমিতে আদালতের ১৪৪ ধারা অমান্য করে গ্রীস প্রবাসী নুর মোহাম্মদ গংরা বসত বাড়ি ও ঘরে হামলা করেন। এ সময় বসত বাড়ি ও ঘরে ব্যাপক ভাংচুর ও লুটপাট করে তারা বাড়ি দখলের চেষ্টা করে।
অস্ত্রধারীদের আঘাতে হতদরিদ্র্য কৃষক মোজাম্মেলের শ্বশুর ৯০ বছরের বৃদ্ধ আবুল কালামসহ ৬ জন গুরুতর আহত হয়।
গত ২মে জেলার কবিরহাট উপজেলার ৩নং ধানসিড়ি ইউনিয়নের নলুয়া গ্রামে এ মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে।
আহতরা বর্তমানেও নোয়াখালী ২৫০ শয্যা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। আহতদের মধ্যে বৃদ্ধ আবুল কালাম ও মোজোম্মেল হোসেনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানান তারা। এ ঘটনায় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান মুনাফ ও গ্রীস প্রবাসী নুর মোহাম্মদের বিরুদ্ধে হামলা ও দখলে সরাসরি সন্ত্রাসীদের ইন্ধন দেয়ার অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা।
ভুুক্তভোগীরা দাবি করেন, নলুয়া মৌজায় বিভিন্ন খরিদীয় দলিল মূলে ৭ একর ৬২ শতক জমির মালিক ছিলেন এ কে এম নিজাম উদ্দিন মাষ্টার। তিনি মৃত্যুকালীন নি:সন্তান ছিলেন। ফলে ওয়ারিশ সূত্রে এ সম্পত্তির মালিক হন তার মা, এক ভাই ও বোন।
আহত কৃষক মোজাম্মেল ওই জমির মালিক এ কে এম নিজাম উদ্দিন মাষ্টারের বোন কামরুন নাহারের কাছ থেকে ১ একর ৫৪ শতক জমি কিনে নেন। পরে ওই জমিতে বাড়ি-ঘর নিমার্ণ কওে ভোগ দখল ও চাষাবাদ করে আসছিলেন।
কিন্তু প্রবাসী নুর মোহাম্মদ ও তার পরিবারের লোকজন দীর্ঘদিন এ জমি দখল করে রাখে। এ নিয়ে আদালতে মামলা হয়। আদালত এ জমির উপর ১৮৯৮ সালের ফৌজধারী আইন অনুযায়ী ১৪৪ ধারা জারি করে।
গ্রীস প্রবাসী নুর আহম্মদের নেতৃত্বে আবুল কাসেম, নুরুজ্জামান বাটু, ফয়েজ আহম্মদ, তোফায়েল আহম্মদসহ ১০০ থেকে ১৫০ জন বহিরাগত সন্ত্রাসী অস্ত্র নিয়ে রাতের আঁধারে অসহায়, নিরীহ ও হতদরিদ্র্য মোজাম্মেল হোসেনের বসত বাড়িতে হামলা চালায়। এ দিন ভোর বেলায় পরিবারের লোকজন কিছু বুঝে উঠার আগেই সন্ত্রাসীরা বসত ঘরের ছাল, দরজা, জানালা, বেড়া কেটে নিয়ে যায়। তারা বসত ঘরের প্রয়োজনীয় ও মূল্যবান জিনিসপত্র লুট করে পুরো ঘরের নিশানা মুছে দেয়। এ সময় ওই পরিবারের আবুল কালাম, মোজাম্মেল হোসেন, হালিমাসহ অপরাপরদের বেদড়ক পিটিয়ে ও কুপিয়ে রক্তাক্ত করে পৈশাচিক কান্ড চালায়।
তারা বলেন, আজো ঘরের ভিটিতে চাল, ডালসহ ঘরের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র মাটিতে তছনছ অবস্থায় পড়ে রয়েছে। তারা জানান, সন্ত্রাসীরা পুকুরে পবিত্র কোরআনসহ পরিবারের ব্যবহার করা লেপ-তোষক পানিতে ফেলে দেয়।
এছাড়া সন্ত্রাসীদের কোপের রোষানল থেকে ঘরের পাশের সৃজিত কড়ই, কলা গাছসহ মূল্যবান ফলজ গাছপালাও রক্ষা পায়নি।
বর্তমানে তারা খোলা আকাশের নিচ ছাড়া আর কোন জায়গা নেই। এতে এ পরিবারের আনুমানিক ৬-৭ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেন তারা।

0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


সংবাদ পড়তে লাইক দিন ফেসবুক পেজে